1. kaiumkuakata@gmail.com : Ab kaium : Ab kaium
  2. akaskuakata@gmail.com : akas :
  3. mithukuakata@gmail.com : mithu :
  4. mizankuakata@gmail.com : mizan :
  5. habibullahkhanrabbi@gmail.com : rabbi :
  6. amaderkuakata.r@gmail.com : rumi sorif : rumi sorif
শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর ২০২২, ০৯:০৬ অপরাহ্ন
বিজ্ঞপ্তিঃ-
প্রতিটি জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে। যোগাযোগঃ-০১৯১১১৪৫০৯১, ০১৭১২৭৪৫৬৭৪

কক্সসবাজার উখিয়াতে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আগুন লাগার পরে সবাই যার যার স্থানে পুনরায় ফিরে এসেছে তারা ঘর তৈরি নিয়ে ব্যস্ত।।

  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ২৩ মার্চ, ২০২১
  • ২১৯ বার

ফরিদুল আলম রনি কক্সবাজার প্রতিনিধি।।

তবে আগুন লাগার কারণ জানতে ইতিমধ্যেই কমিটি গঠন করা হয়েছে
নিয়ে ব্যস্ত সবাই প্রতিবেশীরা জানান, আগুন লাগার পর এলাকা ছেড়ে চলে গেছেন খলিল দম্পতি। কোথায় গেছেন, তারা জানেন না।

এ বিষয়ে সাবেকুন্নাহার জানান, আগুন লাগার পর খলিলকে মোবাইল ফোনে বলতে শুনেছেন, ঘরে থাকা সিলিন্ডার বিস্ফোরণে আগুন লেগেছে। যেহেতু আগুন তার ঘর থেকে লেগেছে, তাই সবাই তাকে ধরবে। এজন্য তিনি ঘর ছেড়ে চলে যাচ্ছেন।

মৌলভী খলিলুর রহমানের ঘরের সেই গ্যাস সিলিন্ডার।
উখিয়া ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের কর্মকর্তা ইমদাদুল হক জানান, খলিলুরের ঘর তারা পরিদর্শন করেছেন। ঘরের ভেতর বিস্ফোরিত একটি গ্যাস সিলিন্ডার দেখেছেন তারা।

তিনি বলেন, ফায়ার সার্ভিস একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। কমিটিকে চার কর্মদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। প্রতিবেদন পেলে অগ্নিকাণ্ডের কারণ জানা যাবে।

সোমবার বিকেল ৪টার দিকে উখিয়ার চার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আগুন লাগে। কক্সবাজার, উখিয়া, টেকনাফ ও রামু স্টেশনের ছয়টি ইউনিট রাত ১০টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

আগুনে ১১ জন মারা গেছেন। পুড়ে গেছে ৯ হাজার ৩০০টি ঘর। মঙ্গলবার বিকেল ৫টার দিকে কক্সবাজার ত্রাণ ও শরণার্থী প্রত্যাবাসন কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে দুর্যোগ ও ত্রাণ সচিব মো. মহসীন এসব তথ্য জানান।

দুর্যোগ সচিব জানান, ৮ নম্বর ক্যাম্পের ই ব্লকের একজন, ডব্লিও ব্লকের পাঁচজন এবং ৯ নম্বর ক্যাম্পের পাঁচজন মারা গেছেন।

আগুনে পুড়ে গেছে ৯ হাজার ৩০০টি ঘর। এসব ঘরের প্রায় ৪৫ হাজার লোক নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন বলেও জানান সচিব।

১৬ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক তারিকুল ইসলাম জানান, অগ্নিকাণ্ডের সময় ছোটাছুটি করতে গিয়ে অন্তত ৫০ জন আহত হয়েছেন। তাদের ক্যাম্পের বিভিন্ন এনজিওর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

মঙ্গলবার সকালে বালুখালীর বলিবাজারসংলগ্ন ক্যাম্পে দেখা যায়, পুড়ে যাওয়া ঘরে প্রয়োজনীয় ও মূল্যবান জিনিসপত্র কিছু অবশিষ্ট আছে কি না, তা খুঁজছেন অনেকে।

চার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আগুনে ঘরহারা মানুষ
ঘর হারিয়ে কক্সবাজার-টেকনাফ মহাসড়কে খোলা আকাশের নিচে অবস্থান নিয়েছে কয়েক হাজার রোহিঙ্গা পরিবার।

আগুনের কারণ উদঘাটনে সরকার সাত সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে জানিয়ে দুর্যোগ সচিব বলেন, এই কমিটি অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাতসহ সব বিষয়ে অনুসন্ধান করবে। তিনদিনের মধ্যে এই কমিটি সরকারকে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেবে।

কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মামুনুর রশীদ নিউজবাংলাকে জানান, আগুনের কারণ এবং ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ খতিয়ে দেখতে শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার শাহ রেজওয়ান হায়াতকে প্রধান করে এই তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।

আপনার ফেইসবুকে শেয়ার করুন।

এরকম আরো খবর
© এই সাইটের কোন নিউজ/ অডিও/ভিডিও কপি করা দন্ডনিয় অপরাধ।
Created By Hafijur Rahman akas