1. kaiumkuakata@gmail.com : Ab kaium : Ab kaium
  2. akaskuakata@gmail.com : akas :
  3. mithukuakata@gmail.com : mithu :
  4. mizankuakata@gmail.com : mizan :
  5. habibullahkhanrabbi@gmail.com : rabbi :
  6. amaderkuakata.r@gmail.com : rumi sorif : rumi sorif
মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৫:০৯ অপরাহ্ন
বিজ্ঞপ্তিঃ-
প্রতিটি জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে। যোগাযোগঃ-০১৯১১১৪৫০৯১, ০১৭১২৭৪৫৬৭৪

রাজনৈতিক ক্যারিয়ার ধ্বংসের জন্য এসব করছে” ভাইরাল হওয়া নেতা

  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ১২ এপ্রিল, ২০২২
  • ৭৮ বার

জুলহাস আহমেদ, বরগুনা:

“আগামী দুইদিনের মধ্যে ২ লাখ টাকা দিবি। নইলে এই ভিডিও ভাইরাল কইরা দিমু। আর আমরা হইলাম নয়ন বন্ডের লোক, এবিষয়ে কাউকে কিছু বললে তুই এবং তোর পরিবারের কোন চিহ্ন থাকবে না” এভাবেই ভয়ভীতি দেখিয়ে ব্ল্যাকমেইল করে টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ বরগুনার সেই আওয়ামী লীগ নেতার। এই আওয়ামী লীগ নেতা শাহ আলম বরগুনা সদর উপজেলার নলটোনা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক। সম্প্রতি তার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

২ মিনির ১২ সেকেন্ডের ওই ভিডিওতে দেখা যায়, একটি কক্ষে একজন নারী ও কয়েকজন ব্যাক্তির সাথে কথোপকথন হচ্ছিল তার। একপর্যায়ে ভিডিও ধারনকৃত ব্যাক্তি বোরকা পড়া ওই নারীকে জুতা দিয়ে আওয়ামী নেতা শাহ আলমকে পেটাতে বলেন। ওই তাৎক্ষনিক তাকে এলোপাতাড়ি জুতাপেটা করতে থাকে। এসময় এখানে আরও কয়েকজন ব্যক্তি ছিলো।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ছড়িয়ে পড়া ভিডিওটি গত শনিবার রাতের। বরগুনা পৌরশহরের ডিকেপি রোড এলাকার একটি বাসায় বসে ভিডিওটি ধারণ করা হয়। ভিডিওটি গতকাল (১১ এপ্রিল) বিকেলে ছড়িয়ে পরলে এলাকাজুড়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়।

তবে এঘটনাটি পূর্বপরিকল্পিত ও বানোয়াট বলে অভিযোগ আওয়ামী নেতা শাহ আলমের। তিনি বলেন, গত শনিবার আমি ৬০ হাজার টাকা ব্যাংকে জমা দিতে বরগুনা সদরে যাই। কিন্তু ব্যাংক বন্ধ হয়ে যাওয়ায় টাকা জমা দেয়া হয়নি । পরে তারাবীর নামাজ শেষে বাড়ির উদ্দেশ্য রওয়ানা হই। এসময় দুজন লোক এসে আমাকে বলে আমার এলকার কোন এক লোক অসুস্থ্য, আমাকে যেতে হবে। আমি তাদের সাথে রওয়ানা হই। তাদের গতিবিধি সন্দেহজনক মনে হলে আমি যেতে চাইনি । তারা আমাকে জোর করো ডিকেপি রোডের একটি বাসায় নিয়ে যায়। বাসায় গিয়ে দেখি আরও কয়েকজন লোক সেখানে। পরে এক বোরকা পড়া মহিলা এসে আমাকে জুতা দিয়ে মারতে থাকে। এসময় সাথে থাকা অন্যরা আমার সাথে থাকা ৬০ হাজার টাকা নিয়ে যায়। এবং বলতে থাকে “দুইদিনের মধ্যে ২ লাখ টাকা না দিলে ভিডিও ভাইরাল করে দেব, সময়মত টাকা না পেলে তোরে উপরে চালান কইরা দিমু”। আমি তাদের কাউকে চিনিনা।

তিনি বলেন, তারা আমাকে হুমকি দিয়ে বলে “আমরা নয়ন বন্ডের লোক, এবিষয়ে কাউকে কিছু বললে আমাকে ও আমার পরিবারকে শেষ করে দিবে। তাই কাউকে কিছু বলিনি। তারা ষড়যন্ত্রমূলকভাবে আমাকে আটকে রেখে লুট করেছে। আমার দীর্ঘ রাজনৈতিক ক্যারিয়ার ধ্বংসের জন্য এসব করছে।বিষয়টি আমি আমার উর্ধতন নেতাদের জানিয়েছি। তাদের নির্দেশক্রমে আমি পরবর্তী ব্যবস্থা নিব।

স্থানীয় আওয়ামী নেতা ও ইউপি সদস্য মো. পলাশ বলেন, তাকে (শাহ আলম) কখনও কোন অনৈতিক কাজের সাথে জড়িত থাকতে দেখিনি আমরা। আমার ধারনা তাকে উদ্দেশ্যপ্রনেদিত ভাবে ফাসানো হয়েছে। প্রশাসনের কাছে দাবি বিষয়টি তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হোক।

এবিষয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট শাহ মোহাম্মদ ওলিউল্লাহ ওলি বলেন, আমি ভিডিওটি দেখেছি। ভিডিওতে যাদেরকে দেখা গেছে তাদের পরিচয় জানা যায়নি। তবে শাহ আলমের বিরুদ্ধে এর আগে কোন অনৈতিক কাজে জড়িত থাকার অভিযোগ আসেনি৷ তার অনৈতিক কাজে জড়িত থাকার অভিযোগ প্রমানিত হলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বরগুনা সদর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আলী আহম্মেদ বলেন, এ বিষয়ে এখনো পর্যন্ত কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জুলহাস আহমেদ
বরগুনা
মোবাইল.০১৬১১১২০৮৫৮

আপনার ফেইসবুকে শেয়ার করুন।

এরকম আরো খবর
© এই সাইটের কোন নিউজ/ অডিও/ভিডিও কপি করা দন্ডনিয় অপরাধ।
Created By Hafijur Rahman akas