1. kaiumkuakata@gmail.com : Ab kaium : Ab kaium
  2. akaskuakata@gmail.com : akas :
  3. mithukuakata@gmail.com : mithu :
  4. mizankuakata@gmail.com : mizan :
  5. habibullahkhanrabbi@gmail.com : rabbi :
  6. amaderkuakata.r@gmail.com : rumi sorif : rumi sorif
শুক্রবার, ০৫ মার্চ ২০২১, ০৩:০৩ পূর্বাহ্ন
বিজ্ঞপ্তিঃ-
প্রতিটি জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে। যোগাযোগঃ-০১৯১১১৪৫০৯১, ০১৭১২৭৪৫৬৭৪
শিরোনামঃ-
অন্যের স্ত্রী নগদ টাকা ও স্বর্নালঙ্কার চুরি; কলাপাড়ায় কথিত সাংবাদিকের নামে সমন জারি কলাপাড়া আন্ধার মানিক নদীর মোহনায় জলদস্যু জোংলা শাহালম বাহিনী কর্তৃক ট্রলার ডাকাতি, অপহরণ-১। সংখ্যার চেয়ে আমার কাছে মানের গুরুত্ব বেশি: আসিফ নূর দেশব্যাপী সাংবাদিক হত্যা মামলা-হামলা হয়রাণীর প্রতিবাদে কাল কলমবিরতি চাঁপাইনবাবগঞ্জে ২কোটি টাকার হেরোইনসহ আটক-১ বরগুনায় পুলিশ মেমোরিয়াল ডে-২০২১ পালিত টাংগাইলে বীর মুক্তিযোদ্ধা শাজাহান সিরাজ’র ৭৮ তম জন্ম বার্ষিকী পালন কলাপাড়ায় নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের তরুণ সাংবাদিক বোরহানউদ্দিন মুজাক্কির হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা ইউপি নির্বাচনে দলীয় নমিনেশন পাওয়ার আগেই নৌকা প্রতিক ব্যবহারের অভিযোগ গোয়ালন্দে বিয়ের প্রলোভনে ৪র্থ শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ আটক-০১ পটুয়াখালীর মির্ঞ্জাগন্ঞ্জে পুলিশের অভিযানে ১ কেজি ৩৬৭ গ্রাম গাঁজা উদ্ধার, আটক ৩! চাঁপাইনবাবগঞ্জে তাঁতী লীগের জেলা ও উপজেলা কার্যালয়ের উদ্বোধন

কলাপাড়ায় চাঁদার টাকা না দিতে পাড়ায়ে জমি চাষাবাদ বন্ধ করে দিয়েছে ভূমিদস্যু চাঁদাবাজরা।

  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ১২ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৫৪ বার


মোঃ জাহিদ, মহিপুর প্রতিনিধিঃ– 
কলাপাড়া উপজেলার ৫নং নীলগঞ্জ ইউনিয়নের বাসিন্দা সাংবাদিক ও মানবাধিকার কর্মী মোঃ শাহাবুদ্দিনের পিতা মোঃ ইমদাদুল হক চাঁদার টাকা না দেওয়ার কারণে জমি চাষাবাদ বন্ধ করে দিয়েছে একই এলাকার ভূমিদস্যু সন্ত্রাসী চাঁদাবাজরা।
মামলা ও স্থানীয় সূত্রে জানা যাচ্ছে যে, সাংবাদিক ও মানবাধিকার কর্মী মোঃশাহাবুদ্দিন ও তার পিতা মোঃ ইমদাদুল হকের তফসিল বর্ণিত সম্পত্তি হলদিবাড়িয়ে। ৩০/০৮/২০২০ ইং তারিখ রোজ রবিবার। সাংবাদিক শাহাবুদ্দিন ও তার পিতার সাথে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে একই এলাকার কতিপয় ভূমিদস্যু চাঁদাবাজ মোঃ বাহাউদ্দিন (৪২) নুর আলম(৪৪)  সাইফুল(৩০)  আব্দুল্লাহ(১৯)  জাহিদুল(১৯) আলমগীর(৪৪) ইমরান(২০) সহ আসামিরা পরস্পর একত্রিত হয়ে চাঁদা দাবি করে। আসামিরা একই দলীয় দাঙ্গা-হাঙ্গামা কারী লাঠিয়াল ভূমিদস্যু ও চাঁদাবাজ প্রকৃতির লোক। আসামিদের নির্দিষ্ট কোন কাজ না থাকায় এলাকার সহজ-সরল মানুষের জমিজমা অন্যায় ভাবে জবর দখল করিয়া মোটা অংকের টাকা দাবী করা আসামিদের নেশা ও পেশা। সাংবাদিক ও মানবাধিকারকর্মী শাহাবুদ্দিন ও তার পিতা মোঃ এমদাদুল হকের নিজ নামীয় এবং ক্রয় সূত্রে মালিক হইয়া শান্তি পূর্ণভাবে ভোগ দখল করিয়া আসিতেছে। আসামিরা উক্ত সম্পত্তি অন্যায় ভাবে জবর দখল করার পাঁয়তারায় লিপ্ত থাকে । এবং ৫০,০০০/- টাকা চাদা দাবি করে আসছে। ঘটনার তারিখ সাহাবুদ্দিন ও তার পিতা এমদাদুল হক তাদের নিজ জমিতে ভাড়াটিয়া ট্রাক্টর মেশিন দ্বারা হাল চাষ করিতে গেলে তাহা আসামিরা দেখতে পাইয়া হাতে দা, ছেনা, রামদা লোহার রড সহ জীবননাশক অস্ত্র শাস্ত্রে সজ্জিত হইয়া তাদের নিজ জমিতে অনধিকার প্রবেশ করিয়া উক্ত জমির চাষাবাদ বন্ধ করিয়া দেয়। উক্ত জমি চাষাবাদ করিতে হইলে আসামিরা ৫০,০০০/- টাকা চাঁদা দাবি করে। সাংবাদিক শাহাবুদ্দিন ও তার পিতা চাঁদা দিতে অপারগতা প্রকাশ করিলে সকল আসামিরা তাকে চাঁদার দাবিতে কিল, ঘুষি মারিয়া সমস্ত শরীরে ফুলা জখম করে। মামলার ২ নং আসামী সাংবাদিক শাহাবুদ্দিন এর গলায় গামছা লাগাইয়া শ্বাস রোধ কোরিয়া হত্যার চেষ্টা করে। তার ডাক চিৎকারে এলাকার স্থানীয় লোকজন আসিয়া সন্ত্রাসী চাঁদাবাজের হাত হইতে তাদেরকে রক্ষা করে নতুবা তাদেরকে সাপ খুন করিয়া ফেলিত। আসামিরা এই বলিয়া হুমকি দেয় যে, জমি ও চাঁদা না দিলে উক্ত সম্পত্তি আর চাষাবাদ করিতে দিবেনা। উক্ত সম্পত্তি চাষাবাদ করতে গেলে হাত পা ভাঙ্গায়া পঙ্গু কোরিয়া দিবে। সাংবাদিক ও মানবাধিকারকর্মী শাহাবুদ্দিনের পরিবার কে মিথ্যা মামলা মোকদ্দমা দিয়া জেল হাজত খাটাই বার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত আছে। আসামিদের বিরুদ্ধে সকল মামলা তুলিয়া না নিলে সাংবাদিক ও মানবাধিকার কর্মী শাহাব উদ্দিনকে জীবনের তরে শেষ করে দিবে বলে হুমকি দেয়। পরবর্তীতে বিষয়টি এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের জানাইলে তাহারা আপোষ ফয়সালা কোরিয়া দেওয়ার আশ্বাস দেয়। কিন্তু আসামিরা আপোষ ফয়সালায় বসিতে অস্বীকার করায় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ তাদেরকে আইনের আশ্রয় নিতে বলিলে ন্যায় বিচারের লক্ষ্যে বিজ্ঞ আদালতে অত্র মামলা আনায়ন করিতে বাধ্য হয়। যাহার মামলা নং সি আর-৫২১/২০২০ বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত কলাপাড়া, মামলাটি তদন্ত প্রতিবেদনের জন্য নাওভাঙ্গা সালিহিয়া ফাজিল(বিএ)মাদ্রাসা অধ্যক্ষ খান মোঃ জিয়াউল ইসলাম হাবিব এর উপর ন্যস্ত করে। এ ব্যাপারে স্থানীয় সংবাদ কর্মী গান মুঠোফোনের মাধ্যমে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মোঃজিয়াউল ইসলাম হাবিবের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি মামলাটি সুষ্ঠু তদন্তের জন্য উভয়পক্ষকে নোটিশ প্রদান করিয়া ঘটনাস্থলে তদন্তের জন্য দিন ধার্য করি। ধার্য তারিখে পক্ষদ্বয় উপস্থিত হইলেও বিবাদীপক্ষ কোন কাগজপত্র উপস্থাপন করে নাই। বাদীপক্ষের কাগজ পর্যালোচনা কোরিয়া দেখা যায়  বিবাদী পক্ষ বাদী পক্ষের নিকট কোন জমি পাবে না। মামলার বর্ণিত সাক্ষী এবং  স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের নিকট গোপনে ও প্রকাশ্যে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, মামলার বাদীর আনীত অভিযোগ সত্য।

আপনার ফেইসবুকে শেয়ার করুন।

এরকম আরো খবর
© এই সাইটের কোন নিউজ/ অডিও/ভিডিও কপি করা দন্ডনিয় অপরাধ।
Created By Hafijur Rahman akas