1. kaiumkuakata@gmail.com : Ab kaium : Ab kaium
  2. akaskuakata@gmail.com : akas :
  3. mithukuakata@gmail.com : mithu :
  4. mizankuakata@gmail.com : mizan :
  5. habibullahkhanrabbi@gmail.com : rabbi :
  6. amaderkuakata.r@gmail.com : rumi sorif : rumi sorif
শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৭:০৮ অপরাহ্ন
বিজ্ঞপ্তিঃ-
প্রতিটি জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে। যোগাযোগঃ-০১৯১১১৪৫০৯১, ০১৭১২৭৪৫৬৭৪
শিরোনামঃ-
অন্যের স্ত্রী নগদ টাকা ও স্বর্নালঙ্কার চুরি; কলাপাড়ায় কথিত সাংবাদিকের নামে সমন জারি কলাপাড়া আন্ধার মানিক নদীর মোহনায় জলদস্যু জোংলা শাহালম বাহিনী কর্তৃক ট্রলার ডাকাতি, অপহরণ-১। ১৫ আগস্ট / ইন্ডেমিনিডি অধ্যাদেশ? ঠাকুরগাঁওয়ে জেলা বিএনপির বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত Regional Connections Adult Relationship: HMU Studies: 20 Recommendations cose che spiazzano una domestica sono le peggiori, motivo non sapra verso chi riconoscere la colpa Squirting feeling along with her crave on her behalf boyfriend’s penis Invertito chat deutsch annunci lesbica brescia escort lesbica reggio emilia xvideos escort lesbica incontri chat ribaltato ragazzi belli italiani annunci pederasta friuli mostra rossa pisa Thus I was talking-to this guy for more than thirty days and then we has just come resting together every now and then Spin means sex having spouse clips and you will pictures is offering black colored people A portion of the constraints in the health-related opinion question the enormous amount of information currently present into the relationships software six Shikaku And you will Yoshino (At the very least 17 Years)

তবলছড়ি বাসীর কল্যাণে নিজেকে প্রমাণ করতে চাই চেয়ারম্যান আবুল কাশেম

  • আপডেট সময় শুক্রবার, ৫ আগস্ট, ২০২২
  • ২৩ বার

মোঃ মাসুদ রানা জয়,পার্বত্যচট্টগ্রাম ব্যুরো:

স্বাধীনতার পর অনেক কষ্ট পড়ে পেয়েছি আমরা সুন্দর ডিজিটাল বাংলাদেশ। তবুও কিছু হানাদাররা অপরাধ থেকে দূরে থাকছে না। প্রতিনিয়ত পত্রিকার পাতায় চোখ পড়তেই দুর্নীতি নামের প্রথম শব্দ দুটি চোখে পড়ে। ক্ষমতার চেয়ারে বসতেই নিজেদেরকে বিদ্যমান ক্ষমতাবান ও শক্তিশালী নেতা বলে হুংকার দিয়ে জনসাধারনের ঘুম হারাম করে দেয়। এলাকাভিত্তিক বহু ভয়ংকর চেয়ারম্যান-মেম্বার স্থানীয় নেতা রয়েছেন। এমন অনেক সংবাদই আমরা দেখতে পাই। চাল চোর ডাল চোর ইত্যাদি। সকল অপরাধীদের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কঠোর ভূমিকা রেখেছেন। ভালো সৎ নিষ্ঠাবান দের জন্য রয়েছে তার আশীব্বার্দ। আসুন নজর দেই। খাগড়াছড়ি জেলার মাটিরাঙ্গা উপজেলার তবলছড়ি ইউনিয়নের সরল মনের মানুষ উন্নয়নের কর্ণ ধার নামে পরিচিত চেয়ারম্যান আবুল কাশেম ভূঁইয়া। মানব সেবার এলাকাবাসীর মন জয় করেছেন তিনি।তবলছড়ি এলাকাবাসী প্রতিবেদকে বলেন আমরা এমন চেয়ারম্যান পেয়ে গর্বিত। স্থানীয় বাসিন্দারা বলেন আগের তুলনায় আমরা অনেক ভালো আছি। যখনই প্রয়োজন আমাদের চেয়ারম্যান সার্টিফিকেট, জন্ম নিবন্ধন, বিনা খরচে দিয়ে থাকেন।

 

জরুরী পারিবারিক সকল বিষয় সুন্দর সমাধান দিয়ে থাকেন। স্থানীয় বাসিন্দারা তাদের ব্যক্তিগত মতামত প্রকাশ করে বলেন। সুন্দর মনের মানুষ চেয়ারম্যান আবুল কাশেম ভূঁইয়া। জনপ্রতিনিধি হিসেবে ইতিপূর্বে জনগণের মন জয় করেছেন তিনি । এ বিষয়ে চেয়ারম্যান আবুল কাশেম ভূঁইয়া কে প্রশ্ন করলে প্রতিবেদক ঃ ২নং তবলছড়ি ইউনিয়নের জন্য কি চিন্তাভাবনা আপনার? উঃ চেয়ারম্যান আবুল কাশেম ভূঁইয়া বলেন ইউনিয়ন বাসীর কল্যাণে আমি কিছু করে যেতে চাই। আমি অত্র ইউনিয়নের ৪ বারের নির্বাচিত চেয়ারম্যান বিগত দিনে রাস্তা ঘাট,ব্রিজ, কালবার্ড, বিদ্যুৎ ভিবিন্ন কাজ আমি বাকি রাখিনিাআমার সাথে সাধারণ মানুষের দুঃখ কষ্ট ভাগাভাগি করে নিত।আমি তাদের পাশে থেকে আমার দায়িত্ব পালন করতে চাই।এভাবেই মনের কথা প্রকাশ করেন চেয়ারম্যান আবুল কাশেম ভূঁইয়া একজন সরল মনের মানুষ এর বাস্তব কর্মকাণ্ড প্রকাশ না করে থাকতে পারিনি।প্রতিটি মানুষের স্বপ্ন থাকে। কিন্তু স্বপ্নের পথে পা বাড়ালেই একের পর এক আসতে থাকে প্রতিবন্ধকতা। যে ব্যক্তি এসব প্রতিবন্ধকতা ডিঙিয়ে এগিয়ে যাবেন তিনিই হবেন সফল। আজ এমনি তবলছড়ি ইউনিয়ন বাসীর সরল মনের মানুষ চেয়ারম্যান আবুল কাশেম ভূঁইয়া কে নিয়ে আজকের প্রতিবেদন।

এলাকার দায়িত্ব কে নেবে দুশ্চিন্তা পড়েছিল এলাকাবাসী। যোগ্য হিসেবে চেয়ারম্যান আবুল কাশেম ভূঁইয়ার বিকল্প নেই। যোগ্য ব্যক্তিকে যোগ্য স্থানে যাবে এমন বিষয়টা কারো কারো অপছন্দ তো থাকতেই পারে। যাই হোক অবশেষে অনেক বাধা ও প্রতিবন্ধকতা ডিঙিয়ে একজন সফল ব্যক্তি (চেয়ারম্যান) হিসেবে প্রতিষ্ঠিত।তিনি হলেন তবলছড়ি ইউনিয়নের প্রিয় মানুষ চেয়ারম্যান আবুল কাশেম ভূঁইয়া । তারপরও মানুষের প্রত্যাশা থাকে। তিনি, তাঁর পরিশ্রম, সাহস, ইচ্ছাশক্তি, একাগ্রতা আর প্রতিভার সমন্বয়ে সাধারণ মানুষের ভাগ্য উন্নয়নের জন্য, স্থানীয় সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড সঠিক ও সুচারুভাবে বাস্তবায়নের জন্য, সর্বোপরি শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশের যে স্বপ্ন রয়েছে সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করেন। এবং সহযোগিতার আশাও ব্যক্ত করে চলেছেন। এ ব্যক্তি তাঁর বয়স ও অভিজ্ঞতা দুটিকেই হার মানিয়েছেন। তিনি অনেক প্রবীণ। তার অভিজ্ঞতা রয়েছে অনেক। এসকল সফল মানুষের পেছনে আছে কিছু গল্প, তা অনেকটা রূপকথার মতো। আর সে সব গল্প থেকে মানুষ খুঁজে নেয় স্বপ্ন দেখার সম্বল, এগিয়ে যাওয়ার জন্য নতুন প্রেরণা।দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই উল্লেখযোগ্য উন্নয়নে অগ্রণী ভূমিকা রেখে সাধারণ মানুষের আস্থা অর্জনে সক্ষম হয়েছেন। এলাকার হতদরিদ্র মানুষের উন্নয়নে তাঁর নিরন্তর প্রয়াস সব মহলেই প্রশংসা কুঁড়িয়েছে। রাস্তা ঘাটের উন্নয়ন, শিক্ষা ও স্বাস্থ্য সেবায় বিশেষ অবদান, সামাজিক উন্নয়নসহ বিভিন্ন প্রকল্পের বাস্তবায়নে দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিয়ে এলাকায় নিজের মুখ উজ্জ্বল করেছেন। তার সাথে দলের ভাবমূর্তির উন্নয়ন হয়েছে। অসংখ্য মসজিদ, মাদ্রাসা, স্কুল-কলেজ ও বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠণের অন্যতম পৃষ্ঠপোষক সমাজসেবী হাজি মহাম্মদ মহসিন মিয়া। ব্যক্তি জীবনে তিনি অত্যন্ত নম্র, ভদ্র, সদাহাস্যোজ্জ্বল ও সাদা মনের মানুষ। তাঁর মাঝে কোন অহংকার নেই। নিরহংকারী এই মানুষটি দলমত নির্বিশেষে আজ সকলের কাছে প্রিয়। সর্বোপরি কাজ করছেন সাধারণ মানুষের কল্যাণের জন্য। এই সফল মানুষটি দলীয় নেতাকর্মী থেকে শুরু করে প্রতিটি মানুষের বিপদ আপদে ছুটে যান। এলাকায় তিনি একজন সাদা মনের উদার মানসিকতার ও দানশীল মানুষ হিসেবে ইতিমধ্যে পরিচিতি লাভ করেছেন। এলাকার সাধারণ মানুষের মতে, আমরা নেতা বা চেয়ারম্যান বুঝিনা।একজন ভাল মানুষ পেয়েছি এটা গ্যারান্টি দিয়ে বলতে পারি এলাকাবাসী দাবি।। তিনি একজন কর্মঠ ব্যক্তি। তিনি চেয়ারম্যান পদে থাকলে আমাদের তথা এলাকার উপকার হবে। আমাদের দু:খ দুর্দশায় তাঁকে সহজেই পাশে পাওয়া যায়।ইতোমধ্যে তিনি সমাজের সকল মতাদর্শের মানুষের কাছে একজন দক্ষ, পরিশ্রমী ও মেধাবী সমাজ সেবক এবং উদীয়মান নেতা হিসাবে ব্যাপক পরিচিতি লাভ করেছেন। নির্বাচনকালীন সময়ে সাধারণ জনগনকে দেওয়া প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করে একজন সফল ও জনপ্রিয় চেয়ারম্যান হিসেবে সবশ্রেনীর মানুষের অন্তরে স্থান করে নিয়েছেন। চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর মাত্র কিছু দিনের মাথায় তার প্রিয় ইউনিয়নকে উন্নয়নের মাষ্টার প্লানের আওতায় এনে ব্যাপক উন্নয়ন মূলক কর্মসূচি হাতে নিয়েছেন। মেধা,মনন, কর্ম প্রয়াস শ্রম ও অধ্যাবশায়ের মাধ্যমে ব্যবস্থাপনাগত দক্ষতা অর্জনের মধ্য দিয়ে তিনি নিজেকে গড়েছেন পরিশীলিতভাবে এক উজ্জ্বল অধ্যায়ে। এলাকার গরীব দুঃখী মানুষের পাশে থেকে তিনি সব সময় সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন।

সর্বোপরি গরীব মেহনতী মানুষের প্রকৃত জনদরদী হিসেবে তিনি এলাকায় ব্যাপক পরিচিত ও জনপ্রিয়তা লাভ করেছেন। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, তিনি তবলছড়ি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হিসেবে নির

আপনার ফেইসবুকে শেয়ার করুন।

এরকম আরো খবর
© এই সাইটের কোন নিউজ/ অডিও/ভিডিও কপি করা দন্ডনিয় অপরাধ।
Created By Hafijur Rahman akas
x