1. kaiumkuakata@gmail.com : Ab kaium : Ab kaium
  2. akaskuakata@gmail.com : akas :
  3. mithukuakata@gmail.com : mithu :
  4. mizankuakata@gmail.com : mizan :
  5. habibullahkhanrabbi@gmail.com : rabbi :
  6. amaderkuakata.r@gmail.com : rumi sorif : rumi sorif
বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল ২০২১, ১১:৫৭ অপরাহ্ন
বিজ্ঞপ্তিঃ-
প্রতিটি জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে। যোগাযোগঃ-০১৯১১১৪৫০৯১, ০১৭১২৭৪৫৬৭৪
শিরোনামঃ-
অন্যের স্ত্রী নগদ টাকা ও স্বর্নালঙ্কার চুরি; কলাপাড়ায় কথিত সাংবাদিকের নামে সমন জারি কলাপাড়া আন্ধার মানিক নদীর মোহনায় জলদস্যু জোংলা শাহালম বাহিনী কর্তৃক ট্রলার ডাকাতি, অপহরণ-১। মহিপুরে আইনকে পুঁজি করে সাধারন মানুষকে ফাঁসানোর অভিযোগ। মহিপুরে আইনকে পুঁজি করে সাধারন মানুষকে ফাঁসানোর অভিযোগ। বিএমএসএফের কেন্দ্রীয় গবেষণা সম্পাদক বেলালকে রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা দেয়া হচ্ছে। গলাচিপায় শিক্ষক-ছাত্রীর আপত্তিকর কথাবার্তা ফাঁস সমালোচনার ঝড়। রমজানের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা সুবেদার আফতাব উদ্দীন কেন্দুয়ায় প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ে- অসীম অপু দম্পত্তি’র রোগমুক্তি কামনায় দোয়া প্রার্থনা সরকারি খাল সেচ দিয়ে চেয়ারম্যানের মাছ শিকার, মিষ্টি পানি সংকটে কৃষক কলাপাড়ায় উপজেলা উন্নয়ন ও সমন্বয়সভা অনুষ্ঠিত \ কেন্দুয়ায় অসীম অপু দম্পতি’র রোগমুক্তি কামনায়-মহিলা কলেজে দোয়া মাহফিল পটুয়াখালীতে জেলা কৃষক লীগের দায়িত্ব পেলেন গাজী আলী হোসেন ও সরদার সোহরাব!

গাজীপুরে তালাকের পর স্ত্রী’র প্রতারণার শিকার স্বামী।

  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ১৫ অক্টোবর, ২০২০
  • ১৩১ বার

গাজীপুর প্রতিনিধিঃ

গাজীপুর মহানগরীর কোনাবাড়ি এলাকায় শান্তনা ফরাজী নামে এক নারী স্বামী কাজী রাজ্জাককে ডিভোর্স দিয়ে পুর্নরায় প্রতারণার মাধ্যমে স্বামীকে হয়রানী করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিয়ের দশ বছর পর স্ত্রী শান্তনা আট মাস আগে ডিভোর্স দিয়ে পুলিশের সহায়তায় বাসার মালামাল নিয়ে অন্যত্র চলে যায়। কাজী রাজ্জাক গাজীপুর মহানগরীর ১২নং ওয়ার্ডের কোনাবাড়ীর বাইমাইল কাদের মার্কেট এলাকার জমশের কাজীর ছেলে। তাদের সাত বছর বয়সী এক পুত্র সন্তান রয়েছে।
অভিযোগ ও জিডি সুত্রে জানান, দশ বছর আগে কোনাবাড়ি প্রাইমারী স্কুল সংলগ্ন বাচ্চু মিয়ার বাড়িতে বাড়া থেকে শান্তনা ফরাজী স্থানীয় পোশাক কারখানায় চাকুরী করার সময় কাজী রাজ্জাকের সাথে পরিচয় সুত্রে বিয়ে করেন। মোসাঃ শান্তনা ওরফে শান্তনা ফরাজী ওরফে শান্তনা কাজী (৩২) গাইবান্ধা জেলার সাদুল্লাপুর উপজেলার খুর্দ্দকোমরপুর গ্রামের মৃত জাহিদুল ইসলামের মেয়ে।
কাজী রাজ্জাকের প্রথম স্ত্রী সন্তানের মা হতে পাবেন জেনে শান্তনা ফরাজীকে বিয়ে করেন। বিয়ের দেড় বছর পর শান্তনা ফরাজী ছেলে সন্তানের মা হয়। কাজী রাজ্জাকের প্রথম সন্তান আর শান্তনা ফরাজীর তৃতীয় সন্তান এটা। বিয়ের পর থেকে শান্তনা ফরাজীকে নিয়ে মিরপুর ঢাকাসহ গাজীপুর জেলার পালের মাঠ ও কোনাবাড়ীর আনসার বিল্ডিং এর দশ তলায় ভাড়ায় থেকেছেন, শুধু মাএ শান্তনা ফরাজীর আগের সংসারের একজন ছেলে সন্তান শাবুল (১৪) একজন কন্যা সন্তান অর্ণা (১২) ও শান্তনা ফরাজীর মাতা রেহেনা বেগমকে এক সাথে লালন পালনের জন্য।
কাজী রাজ্জাক আরও বলেন, আমার ঔরুসজাত ছেলে সন্তান কাজী শাহাদাত(০৭) এর সুখের জন্য আমি শান্তনার সকল চাহিদা সাধ্য অনুযায়ী পুরন করার চেষ্টা করেছি। তার পরও বিগত আট মাস আগে আমার ছেলে সন্তান সহ সাবাইকে নিয়ে হটাৎ করে আমাকে ছেড়ে গিয়ে স্বেচ্ছায় আমাকে তালাক দিয়ে আনসার বিল্ডিং ও দশ তলা থেকে কোনাবাড়ি মেট্রো থানার এস আই মাইকেল বর্নিক ও মানবাধিকারকর্মী ঠান্ডু মিয়ার উপস্থিতিতে সকল মালামাল নিয়ে যায় এমন কি আমার ব্যবহৃত কোন জামা কাপড় পর্যন্ত রেখে যায়নি। আজ আট মাস হলো আমি আমার সন্তানের সাথে দেখা করতে পারিনা, গত মাসে মাঝের দিকে অন্য লোকের মাধ্যমে আমাকে জানায় আমার সন্তান না খেয়ে আছে, আমি তাৎক্ষনিক বাজার করে গাজীপুর চৌরাস্তার শাপলা মেনশনের সামনে আমার ছেলেকে নিয়ে এসে নগদ বিশ হাজার টাকা ঘর বাড়া ও ছেলের জামা কাপড়সহ চাল-ডাল মাছ-মাংসসহ সকল বাজার করে দেই। সেদিনই প্রথম আট মাস পর আমার একমাত্র সন্তানের সাথে দেখা হয়। এসময শান্তনা আমাকে পূনরায় সংসার করার প্রস্তাব দেয়। আমার আর কোন সন্তান নেই বিদায় তার প্রস্তাবে রাজি হয়ে গত ১৯ সেপ্টেম্বর ফ্লাইটে বিমান যোগে ঢাকা থেকে কক্সবাজার যাই। সেখানে গিয়ে শান্তনা আবার তার মতামত পরির্বতন করে বলে আমার সাথে সংসার করতে পারবে না। সংসার করতে হলে তার নামে জমি বাড়ি লিখে দিতে হবে। আমি রাজি না হওয়াতে সে রেগে গিয়ে বলে আমার বর্তমান অবস্থান সর্ম্পকে তোমার ধারনা নেই, আমি এখন সাংবাদিক আমি চাইলে তোমাকে ধ্বংস করে দিতে পারি। পুলিশ সহ আরও বড় বড় স্থানে আমার চলাচল। তোমার ছেলে আমার পুঁজি। এই পুঁজি দিয়ে আমি তোমার সাথে খেলবো। আমি এক বছরে ষাট লাখ টাকা রোজগার করবো তারপর সংসার করার কথা ভাববো। অবশেষে আমার সাথে আবারও প্রতারনার করার জন্য নতুন কৌশলে ২৪ সেপ্টেম্বর গাড়ী যোগে গাজীপুর ফিরে আসি দু’জন একসাথে। আমাকে বিভিন্ন ভাবে হুমকি প্রধান করে ভয় দেখানোর কারণে নিরাপত্তা চেয়ে কোনাবাড়ি মেট্রো থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করি। আপনারা তো সাংবাদিক, আপনাদের কাছে আমার প্রশ্ন ফাইব পাশ করে কি সাংবাদিকতা করা যায়। আমার জানা মতে শান্তনা অষ্টম শ্রেনী পাশও করেনি। সে কিভাবে সাংবাদিকতা করে। তার কোন ব্যবসা বানিজ্য নেই, অনলাইন কি বেতন দেয় তাকে।
প্রতারিত স্বামী কাজী রাজ্জাকের তথ্যমতে, শান্তনা ফরাজী চ্যানেল এইচ টিভির বাংলা এর বিশেষ প্রতিনিধি, যাহা তিনি বিজিটিং কার্ডে পরিচয় বহন করেন, এবিষয়ে চ্যানেলের মালিক জাহাঙ্গীর আলম বলেন,তাদের শান্তনা ফরাজী নামের প্রতিনিধি আছে। তবে তার শিক্ষাগত বিষয়ে জাহাঙ্গীর বলেন, অষ্টম শ্রেণী পাশ শান্তনা ফরাজী এটা তিনি জানেন।
অভিযোগ সম্পর্কে মোসাঃ শান্তনা ওরফে শান্তনা ফরাজী ওরফে শান্তনা কাজী (৩২) কে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করা হলে ক্ষেপে উত্তেজিত হয়ে ফোন কেটে দেন।

আপনার ফেইসবুকে শেয়ার করুন।

এরকম আরো খবর
© এই সাইটের কোন নিউজ/ অডিও/ভিডিও কপি করা দন্ডনিয় অপরাধ।
Created By Hafijur Rahman akas