1. kaiumkuakata@gmail.com : Ab kaium : Ab kaium
  2. akaskuakata@gmail.com : akas :
  3. mithukuakata@gmail.com : mithu :
  4. mizankuakata@gmail.com : mizan :
  5. habibullahkhanrabbi@gmail.com : rabbi :
  6. amaderkuakata.r@gmail.com : rumi sorif : rumi sorif
শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১, ০৪:২৩ অপরাহ্ন
বিজ্ঞপ্তিঃ-
প্রতিটি জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে। যোগাযোগঃ-০১৯১১১৪৫০৯১, ০১৭১২৭৪৫৬৭৪
শিরোনামঃ-
অন্যের স্ত্রী নগদ টাকা ও স্বর্নালঙ্কার চুরি; কলাপাড়ায় কথিত সাংবাদিকের নামে সমন জারি কলাপাড়া আন্ধার মানিক নদীর মোহনায় জলদস্যু জোংলা শাহালম বাহিনী কর্তৃক ট্রলার ডাকাতি, অপহরণ-১। যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপিত হয়েছে পবিত্র ঈদুল আযহা।। কুয়াকাটা পৌরসভায় ১৬ ’শ ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের মাঝে চাল বিতরণ কুয়াকাটায় কন্যাদ্বায়গ্রস্ত পিতার পাশে কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা সোহাগ।। বঙ্গবন্ধুর নামে ৮ টি গরু ২টি মহিষ কোরবানী দিবেন কুয়াকাটা পৌর মেয়র। পটুয়াখালীতে করোনায় আরও তিন জনের মৃত্যু।। কুয়াকাটায় ৩ হাজার পেলো প্রধানমন্ত্রীর খাদ্য সহায়তা। ২৪ ঘন্টায় করোনা আপডেট নওগাঁ জেলায় আরও ২ ব্যক্তির মৃত্যুঃ মোট মৃত্যু ১১১ জনঃ নতুন আক্রান্ত ৫৬ জন দশমিনায় তিন ইউপি সদস্যদের শপথ গ্রহন অনুষ্ঠিত

বন কর্মকর্তা আবুল কালামের বিরুদ্ধে সরকারি গাছ চুরির অভিযোগ।

  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ১২ জানুয়ারী, ২০২১
  • ১৭৬ বার

নিজস্ব প্রতিনিধি, পটুয়াখালী।।

পটুয়াখালীর বাউফলে বন কর্মকর্তা আবুল কালামের বিরুদ্ধে রাতের আধাঁরে সরকারি গাছ চুরি করে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

উপজেলার কালিশুরী থেকে বাহিরচর এলাকার প্রকল্পের উপকারভোগী সমিতির সভাপতি জলিল মাস্টার বন বিভাগের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, গত ২৪ ডিসেম্বর রাত সাড়ে ৮টায় উপজেলা বন কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) আবুল কালামসহ ৭/৮ জন লোক কালিশুরী বন্দর থেকে বাহিরচর সড়কের পাশে সামাজিক বনায়ন প্রকল্পের শোভাবর্ধনকারী বেশ কিছু মূল্যবান কাছ কেটে ফেলে। গাছগুলো স্থানীয় পরিবহনে করে ট্রলারে ভরার সময় প্রকল্পের উপকারভোগী সমিতির সভাপতি জলিল মাস্টারসহ অন্যান্য সদস্যরা দেখে ফেলে এবং সাথে সাথে গাছ নিতে বাঁধা দেয়। এ সময় বন কর্মকর্তা আবুল কালাম ট্রলারভর্তি গাছ নিয়ে দ্রুত গতিতে চলে যায়। পরের দিন সকালে বন কর্মকর্তা আবুল কালাম এসে গাছ নিতে বাঁধাদানকারীদের নামে মামলা দেওয়াসহ জীবননাশের হুমকি দেয় বলে অভিযোগে উল্লেখ করেন।

আবুল কালামের বাড়ি ওই এলাকার চাঁদকাঠী গ্রামে। এর আগেও ওই উপজেলায় বনকর্তার দায়িত্বে ছিলেন এবং ওই সময়ও তার বিরুদ্ধে গাছ চুরির অভিযোগ ছিলো। তার সাথে বিভিন্ন এলাকার সন্ত্রাসী, চোরাকারবারী সাথে সখ্যতা আছে বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ রয়েছে।

গত ২৯ ডিসেম্বর পটুয়াখালী জেলা বন কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করার পরে ভয়ে অভিযোগকারী ভয়ে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন বলে জানা গেছে। আব্দুল জলিলের পরিবার আরও জানায় সামাজিক বনায়ন প্রকল্পের সুফলভোগীরা আবুল কালামের মামলা হয়রানির আতংকে রয়েছেন।

অভিযোগের বিষয়ে বাউফল বন কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) আবুল কালাম তার মুঠোফোনে (০১৭১২০১৫০৮৫) বলেন, ওই গাছগুলো স্থানীয় চেয়ারম্যানের হেফাজতে আছে। আমি মোটরসাইকেলে চেয়ারম্যানের কাছে যাচ্ছি। এ বিষয়ে বিকালে আপনার সাথে কথা হবে বলে ফোন রেখে দেয়।

অভিযোগের তদন্ত অগ্রগতি বিষয়ে জেলা বন কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম বলেন, আবুল কালামের বিরুদ্ধে অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত চলছে। দোষী সাব্যস্ত হলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আপনার ফেইসবুকে শেয়ার করুন।

এরকম আরো খবর
© এই সাইটের কোন নিউজ/ অডিও/ভিডিও কপি করা দন্ডনিয় অপরাধ।
Created By Hafijur Rahman akas