1. kaiumkuakata@gmail.com : Ab kaium : Ab kaium
  2. akaskuakata@gmail.com : akas :
  3. mithukuakata@gmail.com : mithu :
  4. mizankuakata@gmail.com : mizan :
  5. habibullahkhanrabbi@gmail.com : rabbi :
  6. amaderkuakata.r@gmail.com : rumi sorif : rumi sorif
বুধবার, ০৩ মার্চ ২০২১, ১১:৫৮ অপরাহ্ন
বিজ্ঞপ্তিঃ-
প্রতিটি জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে। যোগাযোগঃ-০১৯১১১৪৫০৯১, ০১৭১২৭৪৫৬৭৪
শিরোনামঃ-
অন্যের স্ত্রী নগদ টাকা ও স্বর্নালঙ্কার চুরি; কলাপাড়ায় কথিত সাংবাদিকের নামে সমন জারি কলাপাড়া আন্ধার মানিক নদীর মোহনায় জলদস্যু জোংলা শাহালম বাহিনী কর্তৃক ট্রলার ডাকাতি, অপহরণ-১। বরগুনায় ‘মিথ্যা’ ধর্ষণ মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগে মানববন্ধন কলাপাড়ায় হামজার ধাক্কায় ৯ বছরের শিশুর মৃত্যু।। সারাদেশে সাংবাদিক হত্যা, হামলা-মামলা ও নির্যাতনের প্রতিবাদে পটুয়াখালী (বিএমএসএফ’র) কলম বিরতি কর্মসূচি। Facts About Internet Dating and the Safety Issues Related to it Free of charge African American Dating Sites and Products Just how do i Meet A lady Online? – Simple And Successful Ideas To Assist you to Meet Young girls You Have Anxiously Been Trying to find Internet dating – An overview of Online Dating Dating Online – The Basics of Online dating services How Do I Meet A female Online? – Simple And Powerful Ideas To Help You Meet Ladies You Have Anxiously Been Looking For Guidance on Foriegn Wives

মানবিক যোদ্ধা পদক পেলো বরগুনার মুসা

  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ১৭ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ৯০ বার

সাইফুল ইসলাম জুলহাস (স্টাফ রিপোর্টার)

মনুষের জোনো ফাউন্ডেশন (এমজেএফ) আজ দেশজুড়ে ১০ জন যুবককে “মহামারীর বীর” হিসাবে সম্মানিত করেছে – এই পরীক্ষামূলক সময়ে যারা প্রয়োজন তাদের দান, অনুকম্পা ও সহায়তার জন্য।

বরগুনার মোঃ মুসা তাদের মধ্যে অন্যতম। তিনি সচেতনতা বাড়াতে কোভিড -১৯ মহামারীর মধ্যে স্থানীয়দের একত্রিত করেছিলেন এবং করোনভাইরাস সংক্রমণে মারা যাওয়া ব্যক্তিদের কবর দেওয়ার জন্য একটি ১০ সদস্যের দল গঠন করেছিলেন। এই দলটি দক্ষিণাঞ্চলে কোভিড -১৯ এর সাথে মারা যাওয়া ২০ জনের দাফনের ব্যবস্থা করেছে।

মুসা নিজের অঞ্চলে মহামারী দ্বারা আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে খাবার, মাক্স এবং হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা ও বিতরণও করেছিলেন। স্থানীয় ব্যবসায়ীদের সহায়তায় এবং সরকারী সংস্থার সাথে সমন্বয় করে তিনি বেকার ও দরিদ্র পরিবারের মধ্যে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেছিলেন।

এছাড়াও সাইফুর রহমান শাকিল নামে অপর এক যুবক একটি স্বতন্ত্র উদ্যোগ গ্রহণ করেছিলেন যার আওতায় তিনি রাজধানীর পাদদেশে অনাহারে ১৫০ জনকে রান্না করা খাবার বিতরণ করেন।

এইভাবে, তিনি এ পর্যন্ত তার স্ত্রীর এবং তার নিজের সঞ্চয় থেকে প্রায় সাড়ে চার লাখ টাকা ব্যয় করেছেন এবং লোকদের মধ্যে প্রায় সাড়ে আট হাজার প্যাকেট খাবার বিতরণ করেছেন।

এছাড়াও তিনি দরিদ্রদের জন্য খাদ্য ও আর্থিক সহায়তার ব্যবস্থা করতে বিভিন্ন সমাজসেবী এবং সংস্থার সাথে যোগাযোগ করেছিলেন।

মুসা ও শাকিল “মনুষের জোনো ফাউন্ডেশন হিরোস অফ প্যান্ডেমিক অ্যাওয়ার্ডস -২০২০” প্রাপ্তদের মধ্যে রয়েছেন, যারা খাদ্য, নগদ, জীবিকা এবং স্বাস্থ্য সহায়তা প্রদানের জন্য স্বেচ্ছায় এগিয়ে এসেছিলেন, দলকে কলঙ্কিত করার বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছিলেন, বাল্য বিবাহ বন্ধ করেছিলেন বা প্রতিরোধ করেছিলেন এবং চলমান কোভিড -১৯ মহামারীর মধ্যেও নারী ও মেয়েদের প্রতি সহিংসতা রোধ করেছে।

অন্য আটজন পুরষ্কারপ্রাপ্তরা হলেন: রিনা আক্তার, কাজী তায়েফ সাদাত, তাহিয়াতুল জান্নাত, সন্ধা রানী রায়, জয়িতা পলি, তাসনুভা আনান, শটেজ চাকমা এবং ববিতা খাতুন।

তিনি যা কিছু করেছিলেন তা কেবল মানবিক ভিত্তিতে এবং বিনিময়ে কোনও প্রত্যাশা না করে মুসা বলেছিলেন, “এই স্বীকৃতি আমাকে মানুষের জন্য আরও বেশি কাজ করার অনুপ্রেরণা যোগাবে”।

এমজেএফ আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস ২০২০ উপলক্ষে আয়োজিত “মানবাধিকারের মহামানবীয় মহামারী” শীর্ষক ওয়েবিনারে পুরস্কারপ্রাপ্তদের নাম ঘোষণা করেছে, ২০২০, যা বিশ্বব্যাপী ১০ ই ডিসেম্বর পালন করা হয়েছিল।

এমজেএফের নির্বাহী পরিচালক শাহীন আনাম তার স্বাগত নোটে বলেছিলেন, যুবক-যুবতীরা তাদের জীবন ঝুঁকির মধ্যে ফেলেছে, তাদের স্বল্প আয় থেকে ব্যয় করেছে এবং অন্যকে সঙ্কটে সাহায্য করার জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করেছে।

তিনি আরও বলেন, “আমরা সেই শত ও কয়েক হাজার মানুষকেও শ্রদ্ধা জানাচ্ছি যারা স্বীকৃতি বা পুরষ্কার পাওয়ার চিন্তাভাবনা না করে চুপচাপ মানবতার জন্য স্বেচ্ছাসেবীর কাজ চালিয়ে গেছেন।”

প্রধান অতিথি হিসাবে ওয়েবিনারকে সম্বোধন করে প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ডঃ গওহর রিজভী এমজেএফের সময়োচিত উদ্যোগের প্রশংসা করে বলেন, যতক্ষণ মানুষের অন্যের প্রতি সহানুভূতি ও সহানুভূতি রয়েছে, ততক্ষণ সম্ভব সব কিছু সম্ভব।
ডাঃ রিজভী প্রস্তাবিত বৈষম্য বিরোধী আইন অবিলম্বে কার্যকর করার জন্য এবং দেশে সংখ্যালঘুদের জন্য একটি জাতীয় কমিশন গঠনের প্রয়োজনীয়তার উপরও জোর দিয়েছিলেন।

তিনি নারীর অধিকার এবং ক্ষমতায়নের স্বার্থের জন্য ক্ষতিকারক সকল বৈষম্যমূলক আইন পর্যালোচনা করতে এনজিওদের পূর্ণ সহযোগিতা চেয়েছিলেন।

পুরস্কারপ্রাপ্তদের অভিনন্দন জানিয়ে বাংলাদেশে ব্রিটিশ হাই কমিশনার রবার্ট চ্যাটারটন ডিকসন বলেছিলেন, “মানবাধিকার অবশ্যই সর্বাধিক বঞ্চিত ও প্রান্তিক সহ সমাজের প্রত্যেকের প্রতি শ্রদ্ধা নিশ্চিত করতে হবে। এই দশ জন সাহসী মানবাধিকার রক্ষকরা এটি ঘটানোর জন্য দুর্দান্ত ফ্রন্টলাইন কাজ করেছে। সবাই ফলশ্রুতিতে বাংলাদেশ আরও ভালো। “

জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের (এনএইচআরসি) প্রাক্তন চেয়ারম্যান অধ্যাপক মিজানুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশের সুইজারল্যান্ডের দূতাবাসের সহযোগিতা বিভাগের প্রধান কর্নিন হেনচোজ পিগানানি; এইডের প্রধান, ফেড্রা মুন মরিস, বাংলাদেশের কানাডার হাই কমিশন; ক্রিস্টিন জোহানসন, মিশনের উপ-প্রধান এবং বিকাশের প্রধান, সুইডিশ আন্তর্জাতিক বিকাশ সহযোগিতা সহ অন্যান্য গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

দেশের ৫৫ টি অঞ্চল থেকে এমজেএফের অংশীদার এনজিও, বিভিন্ন নাগরিক সমাজ সংস্থা এবং এনজিও, সদস্য, শিক্ষাবিদ ও মানবাধিকারকর্মীরাও ওয়েবিনারটিতে অংশ নিয়েছিলেন।

আপনার ফেইসবুকে শেয়ার করুন।

এরকম আরো খবর
© এই সাইটের কোন নিউজ/ অডিও/ভিডিও কপি করা দন্ডনিয় অপরাধ।
Created By Hafijur Rahman akas