1. kaiumkuakata@gmail.com : Ab kaium : Ab kaium
  2. akaskuakata@gmail.com : akas :
  3. mithukuakata@gmail.com : mithu :
  4. mizankuakata@gmail.com : mizan :
  5. habibullahkhanrabbi@gmail.com : rabbi :
  6. amaderkuakata.r@gmail.com : rumi sorif : rumi sorif
মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১, ০৪:১৫ অপরাহ্ন
বিজ্ঞপ্তিঃ-
প্রতিটি জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে। যোগাযোগঃ-০১৯১১১৪৫০৯১, ০১৭১২৭৪৫৬৭৪
শিরোনামঃ-
অন্যের স্ত্রী নগদ টাকা ও স্বর্নালঙ্কার চুরি; কলাপাড়ায় কথিত সাংবাদিকের নামে সমন জারি কলাপাড়া আন্ধার মানিক নদীর মোহনায় জলদস্যু জোংলা শাহালম বাহিনী কর্তৃক ট্রলার ডাকাতি, অপহরণ-১। রাজবাড়ীতে বিষাক্ত ইনজেকশন দিয়ে যৌন কর্মীকে হত্যা । বঙ্গোপসাগরে নৌ পুলিশের অভিযানে ১৬ জেলে আটক, ৪ ট্রলার মালিককে জরিমানা । কলাপাড়া উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মৎস্য বন্দর আলিপুরে ট্রলার মালিক ও মাঝি সমিতির বিক্ষোভ মিছিল মহিপুরে কোস্ট গার্ডের অভিযান,২ লাখ ৫০ হাজার বাগদা চিংড়ি রেনু জব্দ কুয়াকাটায় বিশ্ব সমুদ্র দিবসে জীব বৈচিত্র্য রক্ষার দাবি। ‘ও কিসের সাংবাদিক’? রাঙ্গাবালীতে প্রকাশ্য দিবালোকে ব্যবসায়ীর ১ লক্ষ ৭০ হাজার টাকা ছিনতাই রাজবাড়ীতে স্বেচ্ছাসেবক লীগের পক্ষ থেকে বাজেট কে স্বাগত জানিয়ে গোয়ালন্দে আনন্দ মিছিল অনুষ্ঠিত হয় রাজবাড়ীতে গোয়ালন্দে গুরু খামারিদের মাঝে প্রদর্শনী ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত হয় কলাপাড়ায় প্রানীসম্পদ প্রদর্শনীর উদ্বোধন অনুষ্ঠিত ॥

কলাপাড়ায় পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ছাড়াই চলছে অবৈধভাবে ইটভাটা, ক্ষতির স্বীকার এলাকাবাসী।

  • আপডেট সময় সোমবার, ৩০ নভেম্বর, ২০২০
  • ১১৫ বার

মোঃ জাহিদ,স্টাফ রিপোর্টারঃ

পটুয়াখালী জেলার কলাপাড়া উপজেলায় অধিকাংশ ইটভাটাই পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ছাড়া অবৈধভাবে চালিয়ে যাচ্ছে ইট তৈরীর কাজ। সারা বিশ্ব যখন পরিবেশ বিপর্যয়ের সম্মুখীন তখনই বাংলাদেশে পরিবেশ দূষণে হুমকির সম্মুখীন হচ্ছে। পরিবেশ বিপর্যয়ের কারণে জীববৈচিত্র্য ধ্বংসের মুখে। তখনই বাংলাদেশর
বিভিন্ন জেলা ও উপজেলায় পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমোদন ছাড়াই, প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে চালিয়ে যাচ্ছে ইট পোড়ানোর কাজ।

ইটভাটার মালিক গন পরিবেশ বিপর্যয় কে তোয়াক্কা না করে।অধিক লাভের আশায় জ্বালানি কাঠ ও কয়লা দিয়ে চালিয়ে যাচ্ছে ইটভাটা গুলো। কাঠ ও কয়লার দূষণের শিকার অত্র এলাকার পরিবেশ। অনুমোদনবিহীন ইটভাটার কারণে হারিয়ে যাচ্ছে হাজার হাজার একর কৃষি ফসলি জমি।ও কৃষির উৎপাদন হারিয়ে যাচ্ছে। সরেজমিনে দেখা যায়, অত্র এলাকার ইটভাটাগুলো ইট ও মাটি স্থানান্তর করার কারণে এলাকার কাঁচা ও পাকা রাস্তাগুলি সাধারণ মানুষের চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।

ইটভাটার মালিক গন বড় ধরনের প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে কোন সাধারণ মানুষ প্রতিবাদ করার সাহসও পাচ্ছে না।আবার কিছু কিছু ইটভাটার মালিক গন। পরিবেশ অধিদপ্তর ও স্থানীয় জন প্রতিনিধিদের ম্যানেজ করে চালিয়ে যাচ্ছে অবৈধ ইটভাটার কার্যক্রম।এতে এলাকার পরিবেশ দূষণ ও সাধারণ মানুষের ভোগান্তির শিকার হয়ে দাঁড়ায়। গাছপালা ও ফল-ফলাদি থেকে শুরু করে সবকিছুই যেন বিলুপ্তির পথে।বিশ্ব যখন করণা মহামারীরতে
স্তব্ধ হয়ে পড়েছে।তখনই কিছু ইটভাটার মালিকরা অসাধু ভাবে চালিয়ে যাচ্ছে পরিবেশ দূষণকারী ইট পোড়ানোর কাজ। এতে মানুষের
শ্বাসকষ্ট সহ বিভিন্ন রোগের উপদ্রব ছড়িয়ে পড়েছে। এছাড়াও জ্বালানি কাঠ ও কয়লার দূষণের কারণে অনেক গর্ভবতী মা ও নবজাতক শিশুর স্বাস্থ্যর ক্ষতির আশঙ্কা দেখা যায়। এব্যাপারে পরিবেশ অধিদপ্তর বরিশাল বিভাগীয় কার্যালয়ের উপ-পরিচালক কামরুজ্জামান সরকারের সাথে মুঠোফোনে (০১৭১৪ ৫২৯৭৯৭)এই নাম্বারে যোগাযোগ করলে, তিনি জানান, যে সকল ইটভাটাগুলো পরিবেশ দূষণ সৃষ্টি করে তাদের বিরুদ্ধে আপনারা সংবাদ প্রকাশ করুন। এবং তিনি বলেন এদেরকে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক পটুয়াখালী, শেখ কামাল মেহেদী সংবাদকর্মীদের মুঠোফোনে জানান,(০১৬৮৮ ৭২৯৯২০) নাম্বারে যেসকল ইটভাটাগুলো পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ছাড়াই অবৈধভাবে চালিয়ে যাচ্ছে তাদের আইনগত ব্যবস্থা নেবেন বলে আশ্বস্ত করেন।

আপনার ফেইসবুকে শেয়ার করুন।

এরকম আরো খবর
© এই সাইটের কোন নিউজ/ অডিও/ভিডিও কপি করা দন্ডনিয় অপরাধ।
Created By Hafijur Rahman akas