গলাচিপায় মিথ্যা মামলা ও চাঁদাবাজির প্রতিবাদে ছাত্রলীগের সাংবাদিক সম্মেলন।।

39

জসিম উদ্দিন, গলাচিপা, পটুয়াখালী।।পটুয়াখালীর গলাচিপার মিথ্যা মামলা ও চাঁদাবাজির প্রতিবাদে গোলখালী ইউনিয়নের ছাত্রলীগ কতৃক এক সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার রাত সাড়ে ৮ টায় গোলখালী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ কার্যালয়েে অনুষ্ঠানে গোলখালী ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে এ সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক মো. সিরাজুল ইসলাম, সাবেক ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সদস্য মো. নুরআলম জিকো, সাবেক ইউপি সদস্য ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সদস্য মো. দুলাল প্যাদা, ইউনিয়ন কৃষক লীগ সভাপতি মো. হাফিজুর রহমান মোল্লা, এক নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগ সভাপতি মো. সোহেল মোল্লা, ইউনিয়ন সেচ্ছাসেবক লীগ সাধারন সম্পাদক মো. এমাদুল খান সহ ছাত্রলীগ, যুবলীগ, সেচ্ছাসেবক লীগ সহ বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও বিভিন্ন গণমাধ্যমের সাংবাদিক বৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, গত ২৫ শে অক্টোবর ২০১৯ তারিখে রোজ শুক্রবার সকাল আনুমানিক ১০ টায় উন্নত সড়কের কাজে চায়না সিকো পোল্ডার নং-৪৩/২সি কতৃক ঠিকাদার নিযুক্ত হইয়া গাজীপুর খেয়াঘাট, পূর্ব গোলখালী ও সুহুরী ব্রিজ সংলগ্ন এলাকায় বালু, পাথর ও সিমেন্ট সরবরাহ করিতে গেলে, বর্তমান যুবলীগ সভাপতি মো. বশির মাধবরের নেতৃত্বে নিজস্ব সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে বাধা সৃষ্টি করে ২ লক্ষ টাকা ও জাহাজ প্রতি ২০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে এবং লাঠিসোঁটা ও রামদা নিয়ে শ্রমিকদের এলোপাথারি মারধর করে কাজ বন্ধ করে দেয়। পরে সুহুরী ব্রীজের দক্ষিণ পাশে সড়কে শ্রমিকদের বকেয়া পাওনা ৫৭ হাজার ২ শত টাকা গত ২৫ অক্টোবর ২০১৯ সকাল আনুমানিক ৬ টায় নিয়ে আসার পথে বশির মাধবর ও তার বাহিনী ধারালো অস্ত্র ও লাঠিশোঠা নিয়ে উপস্থিত হয়ে মারধর করে টাকা নিয়ে যান এবং ২ লক্ষ টাকার বাকি টাকা কবে নাগাদ দিবে তার জন্য তাগিদ দেন। ঐদিন গলাচিপা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আখতার মোর্শেদ এর বরাবরে ৩ জন আসামীর নাম উল্লেখ ও ৪/৫ জন অজ্ঞাতনামা আসামী করে একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন। যার তদন্ত চলমান।

এ ছাড়া চরসুহুরীর তিনটি পানের বরজ এর মালিক মো. জহিরুল ইসলাম বাদী হয়ে গলাচিপা বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল মেজিস্ট্রেট আদালতে গত ১৫ অক্টোবর ২০১৯ তারিখ রোজ বৃহস্পতিবার একটি চাঁদাবাজি মামলা দায়ের করেন। বশির মাধবর পূর্ব থেকে পান চাষীর কাছে ২ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবি করে আসছিল। গত ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯ তারিখ রোজ শনিবার রাত্র আনুমানিক ১০ টার সময় পান বিক্রির ৮৬ হাজার টাকা বশির মাধবরের নেতৃত্বে ৫/৬ জনের একটি দল পথ রোধ করে হাতে ধারালো অস্ত্র ও লাঠিসোঁটা নিয়ে জীবন নাশের হুমকি দিয়ে সমস্ত টাকা নিয়ে যান। কাউকে জানালে খুন করে ফেলবেন বলে হুমকি দেন। মামলাটি এখন পটুয়াখালী ডিবির তদন্তের প্রক্রিয়ায় রয়েছে।

এ ব্যাপারে পান চাষী জহিরুল ইসলাম জানান, বিবাদী পক্ষ সন্ত্রাসী হওয়ায় জীবন নাশের ভয়ে মামলা করতে বিলম্ব হয়।

পান চাষীর পক্ষে অন্যায়ের ও চাঁদাবাজির প্রতিবাদ করায় বশির মাধবর ক্ষিপ্ত হয়ে গত ২৮ অক্টোবর ২০১৯ রোজ সোমবার, গলাচিপা বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল মেজিস্ট্রেট আদালতে ১ লক্ষ টাকার একটি চাঁদাবাজির মিথ্যা মামলা করেন, যা এখন গলাচিপা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আখতার মোর্শেদ এর তদন্তের অপেক্ষায় আছে।

এই বিষয় পটুয়াখালী-৩ (গলাচিপা-দশমিনা) আসনের সংসদ সদস্য এস এম শাহজাদা বরাবরে বশির মাধবরের বিরুদ্ধে ৬ নভেম্বর ২০১৯ লিখিত দরখস্ত করলে, তিনি গলাচিপা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আখতার মোর্শেদ এর নিকট তদন্ত সাপেক্ষে জরুরী পদক্ষেপ গ্রহনের সুপারিশ করেন।

উক্ত বিষয়ে গোলখালী ইউনিয়ন ছাত্র লীগ সভাপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, বশির মাধবর ইউনিয়ন য়ুবলাীগ সভাপতি হওয়ার পর থেকেই চাঁদাবাজির মহোৎসব করছেন। সাধারণ মানুষ ভয়ে আতঙ্কিত হয়ে আছেন বিধায় মুখ খুলতে পারছেন না। সুষ্ঠ তদন্ত হলেই আসল রহস্য বেরিয়ে আসবে।
এ ব্যাপারে গলাচিপা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আখতার মোর্শেদ জানান, এ সব মামলার শীঘ্রই তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here