কলাপাড়ার সড়কের বেহাল দশা

69

বিশ্বাস শিহাব পারভেজ মিঠু, কলাপাড়াঃ

পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার লালুয়া ইউনিয়নের প্রধান একটি সড়কের বেহাল দশা। বানাতী বাজার হতে উত্তর লালুয়া লঞ্চ ঘাট ও শের-ই-বাংলা নৌঘাটিতে যাতায়াতের প্রায় ৩ কিলোমিটার ইটের সড়কটির এখন নাজেহাল অবস্থা। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বিভিন্ন স্থানে ইট সরে গিয়ে ঝুঁকিপূর্ন হয়ে গেছে। এসব ঝুকিঁপূর্ণ স্থানে যেকোন সময় মারাত্মক দূর্ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা রয়েছে। লালুয়ার গুরুত্বপূর্ণ একটি সড়ক হওয়ার কারনে প্রতিনিয়ত এ সড়ক দিয়ে শত শত মানুষ চলাচল করে। ইউনিয়নের পশরবুনিয়া, ছোনখোলা, চড়পাড়া, দশকানী, মনিরগুটিয়া, সাউগার কান্দা ও বানাতী পাড়া গ্রামের মানুষের উপজেলা সদর ও বাজারের যাতায়াতের একমাত্র সড়ক হওয়ার কারনে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তাদের যাতায়ত করতে হয়। অত্র এলাকার মানুষের দ্রুত চলাচলের একমাত্র বাহন মটরসাইকেল।

এছাড়া ভ্যান গাড়ী ও টমটমেও তারা যাতায়ত করে থাকে। এসকল বাহনগুলো মারাত্মক ঝুঁকি নিয়ে এ সড়ক দিয়ে চলাচল করে। পশরবুনিয়া গ্রামের বাসিন্দা জবির মাতব্বর বলেন, আমি এখানে মুদি দোকানের ব্যবসা করি। বিভিন্ন সময়ে আমাকে উপজেলা ও বানাতীবাজার হতে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদী আনতে হয়। রাস্তার যা অবস্থা তাতে অত্যান্ত ঝুঁকি নিয়ে মটরসাইকেলে আসতে হয়। লালুয়া ইউপি চেয়ারম্যান শওকত হোসেন তপন বিশ্বাস জানান, আমি আমার ইউপি সদস্য মো. লিটন সাউগারকে নিয়ে একাধিকবার মেরামতের কাজ করিয়েছি। কিন্তু কিছুদিন গেলেই আবার পূর্বের অবস্থার সৃষ্টি হয়। এর বেশীরভাগই হয় পায়রা পোর্টের ভারী যানবাহন চলাচলের কারনে। অনেক চেষ্টা করেও সেগুলোর চলাচল বন্ধ করতে পারিনি। রাস্তাটি মেরামতের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তপক্ষের কাছে বারবার আবেদন করেও কোন সাড়া পাইনি।

তিনি আরোও বলেন, রাস্তাটি ওয়াপদার আওতায় হওয়ায় বিভিন্ন জটিলতা রয়েছে। পানি উন্নয়নবোর্ড (পাউবো) কর্তপক্ষ মেরামতের কাজ করতে অনিহা প্রকাশ করে অধিকন্তু এলজিআরডি নিজস্ব উদ্যেগে কাজ করতে চাইলেও তারা বিভিন্ন ধরনের শর্ত আরোপ করে বাধা সৃষ্টি করে।

কলাপাড়া উপজেলা প্রকৌশলী মো. আবদুল মান্নান বলেন, আমি কয়েকবার সড়কটি সরেজমিনে গিয়ে দেখেছি। সড়কটির বেহাল দশা দেখে আমার খুব খারাপ লেগেছে। কিন্তু এটি পাউবোর আওতাভূক্ত হওয়ায় মেরামতে সরকারী কিছু জটিলতাও রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here