প্রার্থী ও ভোটারদের মাঝে অস্থিরতা সতর্ক অবস্থানে প্রশাসন

245

রাসেল কবির মুরাদ , কলাপাড়া প্রতিনিধি ঃ

কলাপাড়ায় হামলা, পাল্টা হামলা এবং প্রার্থীদের পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলনে ক্রমশ:ই অস্থির হয়ে উঠছে কলাপাড়া উপজেলা পরিষদের নির্বচনী মাঠ। এসব ঘটনায় উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে ভোটারসহ দলীয় সাধারন কর্মী-সমর্থকরা। তবে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির নিয়ন্ত্রন রাখাসহ একটি সুষ্ঠ ও সুন্দর নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য সর্বোচ্চ কঠোর অবস্থানে রয়েছে নির্বাচন সংশ্লিস্ট প্রশাসন।
৩১ মার্চ চতুর্থ ধাপে অনুষ্ঠিত হচ্ছে কলাপাড়া উপজেলা পরিষদের নির্বাচন। নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক রাকিবুল আহসান এবং টিয়াখালী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আকতারুজ্জামান কোক্কা। ভাইস চেয়ারম্যান পদে উপজেলা যুবলীগ সভাপতি শফিকুল ইসলাম বাবুল, উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা ও বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান মোস্তাফা কামাল এবং সেচ্ছাসেবকলীগ নেতা নিজাম উদ্দিন। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে শাহিনা পারভীন সীমা, উম্মে তামিমা বিথী ও লাইজু হেলেন লাকী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন।
অংশগ্রহনকারী সকল প্রার্থীই আওয়ামীলীগ দলীয়। ফলে নির্বাচনী প্রচারনার শুরু থেকেই আওয়ামীলীগ এবং সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মী, সমর্থক অনেকটাই হয়ে পড়েছেন দ্বিধান্বিত। প্রচারনার শুরু থেকেই আওয়ামীলীগ দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী আনেন নির্বাচনী আচরন বিধি লংঘনের অভিযোগ। জেলা প্রশাসন সকল উপজেলার প্রার্থীদের নিয়ে বৈঠক করেছেন। সেখানে সুষ্ঠ নির্বাচনী পরিবেশ বজায় রাখার জন্য সকল প্রার্থীকে দিক-নির্দেশনা দেয়া হয়।
এরপরেও ঘটেছে হামলার ঘটনা। বেশ কয়েকটি এলাকায় ঘটেছে হামলা, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা। ভোটারদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভয়ভীতি প্রদর্শন, খুন জখমের হুমকি, সন্ত্রাসী ভাড়া করে জড়ো করা, কেন্দ্রে দাঙ্গা ও ভোট ডাকাতির চেষ্টাসহ সাইবার ক্রাইমের অভিযোগ এনে (২৭মার্চ) প্রতিপক্ষের বিরুদ্বে সাংবাদ সম্মেলন করেছেন নৌকার প্রার্থী রাকিবুল আহসান। একই দিন পাল্টা সাংবাদ সম্মেলনে রাকিবুলের বিরুদ্ধে একই অভিযোগ আনেন প্রতিপক্ষ চেয়ারম্যান প্রার্থী সৈয়দ আকাতারুজ্জামান কোক্কা’র পুত্র টিয়াখালী ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ মশিউর রহমান শিমু।
পটুয়াখালী জেলায় ইভিএম পদ্ধতির প্রশিক্ষন কার্যক্রমের উদ্ভোধন অনুষ্ঠানে নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম বলেন, একটি সুন্দর নির্বাচন উপহার দেয়ার জন্য আমরা নিশ্চিদ্র নিরাপত্তা নিশ্চিত করব।
জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা জিয়াউর রহমান বলেন, ৩১ মার্চ ২০১৯ রবিবার ভোট গ্রহনের সকল সার্বিক প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here