কলাপাড়ায় প্রস্তাবিত উপকূল দিবস পালন

221

সুজন মৃধা, কলাপাড়া ॥
উপকূলের জন্য হোক একটি দিন, জোরালো হোক উপকূল সুরক্ষা দাবি ৭০ এর ১২ নভেম্বর প্রলয়ঙ্করী ঘূর্ণিঝড়ে প্রয়াত উপকূলবাসীর স্মরণ এবং প্রস্তাবিত উপকূল দিবস পালিত হয়েছে পটুয়াখালীর কলাপাড়া, কুয়াকাটা ও নীলগঞ্জ ইউনিয়নের পাখিমারায়। ১৯৭০ সালের ভয়াল ১২ নভেম্বর কলাপাড়াসহ উপকুলবাসীর কাছে এক ভয়াল দুঃস্বপ্নের ও শোকাবহ দিন। ওই দিনের উপকুলে বয়ে যায় দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে প্রলয়ঙ্করী হ্যারিকেনরুপী ঘুর্ণিঝড় গোর্কি ও জলোচ্ছ্বাস। ওই দিনের ভয়াবহতার কথা মনে হলে আজ ও মানুষ আঁতকে ওঠে। এ ঘূর্ণিঝড়ে ১০ লক্ষাধিক মানুষ নিহত হয়। কলাপাড়া প্রেসক্লাবের আয়োজনে দিবসটি উপলক্ষে সোমবার বেলা ১১ টায় শোভাযাত্রা ও প্রেসক্লাব মিলনায়তনে এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। সাংবাদিক মোশারফ হোসেন মিন্টুর সঞ্চালনায় কলাপাড়া প্রেসক্লাব সহ সভাপতি জীবন কুমার মন্ডলের সভাপতিত্বে প্রধান আলোক ছিলেন কলাপাড়া প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি হুমায়ুন কবির। বক্তব্য রাখেন, কুয়াকাটা প্রেসক্লাবের সভাপতি মো. মিজানুর রহমান বুলেট, কলাপাড়া প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নেছারউদ্দিন আহমেদ টিপু, সাংবাদিক অমল মুখার্জী, মো. শাজাহান সিরাজ, জসিম পারভেজ, শামসুল আরেফিন শাকিল প্রমুখ। এর আগে নিহতদের সম্মানে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। মো. হুমায়ূন কবির স্মৃতিচারণ করে বলেন, ঝড়ের কবল থেকে নিজে বেঁচে ফিরলেও তার ১৭ জন স্বজন মারা যায়। এসময় তিনি বক্তব্য দিতে গিয়ে আবেগ আপ্লুত হয়ে পরেন। বক্তারা ১২ নভেম্বর দিনটিকে উপকূল দিবস হিসেবে স্বীকৃতির দাবি জানান। ২০১৭ সাল থেকে উপকূলের জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে এ দিবসটি পালন করা হচ্ছে। উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান উপকূল বাংলাদেশ, কোস্টাল জার্নালিষ্ট ফোরাম অফ বাংলাদেশ (সিজেএফবি), নির্ঝর এন্টারপ্রাইজ এবং আলোকযাত্রা দলের সহায়তায় এ দিবসটি পালন করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here